মেনু নির্বাচন করুন

চায়ের দেশ-মৌলভীবাজার

ডাউনলোড ব্র্যান্ড বুক

ছবিতে জেলা ব্র্যান্ডিং


বিস্তারিত


১. ভূমিকা

অমিত সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। এদেশে বিরাজমান প্রাকৃতিক ও মানব সম্পদকে যথাযথভাবে কাজে লাগিয়ে দেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশের কাতারে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। এজন্য প্রয়োজন অঞ্চলভিত্তিক সম্ভাবনাময় ক্ষেত্রসমূহ চিহ্নিতকরণ এবং কেন্দ্রমুখী দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বেরিয়ে এসে অঞ্চলভিত্তিক অবকাঠামো উন্নয়নে উদ্যোগ গ্রহণ। বাংলাদেশের প্রতিটি অঞ্চলই ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের দিক দিয়ে স্বকীয় বা অনন্য। অন্যান্য জেলার মত মৌলভীবাজার জেলাও রয়েছে কিছু স্বতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য । মৌলভীবাজার জেলার অন্যান্য ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে বিবেচনায় নিয়ে কার্যকর ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে জেলাটিকে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে তুলে ধরার ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। পরিকল্পিত উদ্যোগ, সফল বিনিয়োগের মাধ্যমে জেলা ব্র্যান্ডিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারলে তা জেলাটির পরিচিতি বৃদ্ধির পাশাপাশি অধিকতর কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ভূমিকা পালন করতে পারবে। এর ফলে রাজস্ব অর্জনের সম্ভাবনাময় উৎস সৃষ্টির পাশাপাশি স্থানীয় ও জাতীয় অর্থনীতিতে যুক্ত হবে নতুন এক মাত্রা।

. জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের উদ্দেশ্য

মৌলভীবাজার জেলার চলমান উদ্যোগ এবং সম্ভাবনাসমূহকে বিকশিত করার মাধ্যমে জেলার সার্বিক উন্নয়ন ঘটানো এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিসরে জেলাকে তুলে ধরা জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের মূল উদ্দেশ্য। ব্র্যান্ডিং মৌলভীবাজার জেলাকে একটি সুনির্দিষ্ট রূপকল্প দেবে যা গৃহীত কর্মপরিকল্পনার সুসংগঠিত বাস্তবায়নে সাহায্য করবে। এরই মাধ্যমে জেলা ব্র্যান্ডিং মৌলভীবাজার জেলাকে একটি গন্তব্যে পৌঁছাতে সাহায্য করবে। জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের অন্যান্য উদ্দেশ্যসমূহ হলো:

  • ভিশন-২০২১ ও  ২০৪১ অর্জনে জেলার সার্বিক অর্থনৈতিক কার্যক্রমকে বেগবান করা ;
  • জেলার ইতিবাচক ভাবমূর্তি বিনির্মাণের মাধ্যমে দেশকে আন্তর্জাতিক বিশ্বে পরিচিত করে তোলা ;
  • জেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির লালন ও বিকাশ সাধনসহ স্থানীয় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব সংস্কৃতিকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পরিচিত করে তোলা ;
  • জেলা ব্র্যান্ডিং এর মাধ্যমে এ জেলা তথা বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে উপস্থাপন করা ;
  • স্থানীয় উদ্যোক্তা তৈরি করা ;
  • জেলার সর্বস্তরের জনসাধারণকে উন্নয়নের মহাসড়কের সহিত সম্পৃক্ত করা ;
  • জেলার দারিদ্র্যতা ও বেকারত্ব দুর করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা ;
  • পর্যটন শিল্পের বিকাশ সাধনের মাধ্যমে দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন তরান্বিত করা বিশেষ করে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব সংস্কৃতি,  প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যমন্ডিত দর্শনীয় স্থানের উন্নয়ন।

৩. জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয়

পর্যটনকে কেন্দ্র করে ইতিহাস ও ঐতিহ্য এবং চা বাগানকে সম্পৃক্ত করে জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয় নির্বাচন করা হয়েছে ।

.  পর্যটন কে ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয় হিসেবে নির্বাচনের যৌক্তিকতা

বাংলাদেশের ৭টা টি ভ্যালীর মধ্যে সিলেট বিভাগে রয়েছে ৬টি ভ্যালী। এই ৬টি ভ্যালীতে মোট চা বাগানের সংখ্যা ১৩৮টি। তার মধ্যে মৌলভীবাজার জলোয় রয়েছে ৯২ টি চা বাগান। যার কারণে মৌলভীবাজারকে চায়ের রাজধানীও বলা হয়। সবুজ শ্যামলে মাখা দেশের সবচেয়ে বেশী  চা বাগানের নান্দনিক সৌন্দর্য মৌলভীবাজারকে পরিচিতি এনে দিয়েছে প্রকৃতি কন্যা হিসেবে। চা বাগানরে নর্সৈগকি সৌর্ন্দয্য, চায়রে গাছ থকেে পাতা উত্তোলন থকেে প্রক্রয়িাজাতকরণ এবং চা বাগানে বসবাসরত চা শ্রমকি হসিবেে নয়িোজতি বভিন্নি নৃ-গোষ্ঠীর জীবনধারা ও সংস্কৃতি র্পযটকদরে কাছে আর্কষনীয়। চা কে জলো ব্র্যান্ড করা হলে নম্নিোক্ত ক্ষত্রেে তা গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা পালন করবে :

  • পর্যটন শিল্পের বিকাশের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেলার সর্বস্তরের জনগণের জীবনমান উন্নত হবে ;
  • বিপুল সংখ্যক স্থানীয় উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে ;
  • পর্যটন  শিল্পকে কেন্দ্র করে অবকাঠামো ও ব্যবসা বাণিজ্য উন্নয়নের গতি তরান্বিত হবে ;
  • জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে প্রান্তিক পর্যায়ের অবদান বৃদ্ধি পাবে ।

লোগো:

চাযের বাগানের নান্দনিক সৌন্দর্য মৌলভীবাজারকে পরিচিতি এনে দিয়েছে  প্রকৃতি কন্যা হিসেবে। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি চা বাগান এ জেলাতেই অবস্থিত। তাছাড়া মৌলভীবাজার তথা শ্রীমঙ্গলের চা  দেশে এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিশেষভাবে পরিচিত। তাই ‘চা’ কে ভিত্তি করে জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের লোগো নির্বাচন করা হয়েছে।


জেলা ব্র্যান্ডিং এর কর্মপরিকল্পনা


১. ভূমিকা

অমিত সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। এদেশে বিরাজমান প্রাকৃতিক ও মানব সম্পদকে যথাযথভাবে কাজে লাগিয়ে দেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশের কাতারে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। এজন্য প্রয়োজন অঞ্চলভিত্তিক সম্ভাবনাময় ক্ষেত্রসমূহ চিহ্নিতকরণ এবং কেন্দ্রমুখী দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বেরিয়ে এসে অঞ্চলভিত্তিক অবকাঠামো উন্নয়নে উদ্যোগ গ্রহণ। বাংলাদেশের প্রতিটি অঞ্চলই ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের দিক দিয়ে স্বকীয় বা অনন্য। অন্যান্য জেলার মত মৌলভীবাজার জেলাও রয়েছে কিছু স্বতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য । মৌলভীবাজার জেলার অন্যান্য ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে বিবেচনায় নিয়ে কার্যকর ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে জেলাটিকে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে তুলে ধরার ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। পরিকল্পিত উদ্যোগ, সফল বিনিয়োগের মাধ্যমে জেলা ব্র্যান্ডিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারলে তা জেলাটির পরিচিতি বৃদ্ধির পাশাপাশি অধিকতর কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ভূমিকা পালন করতে পারবে। এর ফলে রাজস্ব অর্জনের সম্ভাবনাময় উৎস সৃষ্টির পাশাপাশি স্থানীয় ও জাতীয় অর্থনীতিতে যুক্ত হবে নতুন এক মাত্রা।

. জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের উদ্দেশ্য

মৌলভীবাজার জেলার চলমান উদ্যোগ এবং সম্ভাবনাসমূহকে বিকশিত করার মাধ্যমে জেলার সার্বিক উন্নয়ন ঘটানো এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিসরে জেলাকে তুলে ধরা জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের মূল উদ্দেশ্য। ব্র্যান্ডিং মৌলভীবাজার জেলাকে একটি সুনির্দিষ্ট রূপকল্প দেবে যা গৃহীত কর্মপরিকল্পনার সুসংগঠিত বাস্তবায়নে সাহায্য করবে। এরই মাধ্যমে জেলা ব্র্যান্ডিং মৌলভীবাজার জেলাকে একটি গন্তব্যে পৌঁছাতে সাহায্য করবে। জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের অন্যান্য উদ্দেশ্যসমূহ হলো:

  • ভিশন-২০২১ ও  ২০৪১ অর্জনে জেলার সার্বিক অর্থনৈতিক কার্যক্রমকে বেগবান করা ;
  • জেলার ইতিবাচক ভাবমূর্তি বিনির্মাণের মাধ্যমে দেশকে আন্তর্জাতিক বিশ্বে পরিচিত করে তোলা ;
  • জেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির লালন ও বিকাশ সাধনসহ স্থানীয় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব সংস্কৃতিকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পরিচিত করে তোলা ;
  • জেলা ব্র্যান্ডিং এর মাধ্যমে এ জেলা তথা বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে উপস্থাপন করা ;
  • স্থানীয় উদ্যোক্তা তৈরি করা ;
  • জেলার সর্বস্তরের জনসাধারণকে উন্নয়নের মহাসড়কের সহিত সম্পৃক্ত করা ;
  • জেলার দারিদ্র্যতা ও বেকারত্ব দুর করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা ;
  • পর্যটন শিল্পের বিকাশ সাধনের মাধ্যমে দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন তরান্বিত করা বিশেষ করে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব সংস্কৃতি,  প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যমন্ডিত দর্শনীয় স্থানের উন্নয়ন।

৩. জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয়

পর্যটনকে কেন্দ্র করে ইতিহাস ও ঐতিহ্য এবং চা বাগানকে সম্পৃক্ত করে জেলা-ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয় নির্বাচন করা হয়েছে ।

.  পর্যটন কে ব্র্যান্ডিংয়ের বিষয় হিসেবে নির্বাচনের যৌক্তিকতা

বাংলাদেশের ৭টা টি ভ্যালীর মধ্যে সিলেট বিভাগে রয়েছে ৬টি ভ্যালী। এই ৬টি ভ্যালীতে মোট চা বাগানের সংখ্যা ১৩৮টি। তার মধ্যে মৌলভীবাজার জলোয় রয়েছে ৯২ টি চা বাগান। যার কারণে মৌলভীবাজারকে চায়ের রাজধানীও বলা হয়। সবুজ শ্যামলে মাখা দেশের সবচেয়ে বেশী  চা বাগানের নান্দনিক সৌন্দর্য মৌলভীবাজারকে পরিচিতি এনে দিয়েছে প্রকৃতি কন্যা হিসেবে। চা বাগানরে নর্সৈগকি সৌর্ন্দয্য, চায়রে গাছ থকেে পাতা উত্তোলন থকেে প্রক্রয়িাজাতকরণ এবং চা বাগানে বসবাসরত চা শ্রমকি হসিবেে নয়িোজতি বভিন্নি নৃ-গোষ্ঠীর জীবনধারা ও সংস্কৃতি র্পযটকদরে কাছে আর্কষনীয়। চা কে জলো ব্র্যান্ড করা হলে নম্নিোক্ত ক্ষত্রেে তা গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা পালন করবে :

  • পর্যটন শিল্পের বিকাশের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেলার সর্বস্তরের জনগণের জীবনমান উন্নত হবে ;
  • বিপুল সংখ্যক স্থানীয় উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে ;
  • পর্যটন  শিল্পকে কেন্দ্র করে অবকাঠামো ও ব্যবসা বাণিজ্য উন্নয়নের গতি তরান্বিত হবে ;
  • জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে প্রান্তিক পর্যায়ের অবদান বৃদ্ধি পাবে ।

লোগো:

চাযের বাগানের নান্দনিক সৌন্দর্য মৌলভীবাজারকে পরিচিতি এনে দিয়েছে  প্রকৃতি কন্যা হিসেবে। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি চা বাগান এ জেলাতেই অবস্থিত। তাছাড়া মৌলভীবাজার তথা শ্রীমঙ্গলের চা  দেশে এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিশেষভাবে পরিচিত। তাই ‘চা’ কে ভিত্তি করে জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের লোগো নির্বাচন করা হয়েছে।



জেলা ব্র্যান্ডিং ভিডিও গ্যালারী



Share with :